ঢাকা   ২৪ অগাস্ট ২০১৯ | ৯ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  অবসরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া (বিবিধ)        খুলনা রেলওয়ে থানায় নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ, তদন্তে কমিটি (খুলনা)        গাজীপুরে মশার ২৫ টন ওষুধ আমদানি করা হয়েছে: মেয়র জাহাঙ্গীর (জেলার খবর)        ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে দুই হাজারের বেশি ডেঙ্গু রোগী (জাতীয়)        কুষ্টিয়ায় মাদক মামলায় একজনের যাবজ্জীবন (জেলার খবর)        ফের হাইকোর্ট ওসি মোয়াজ্জেমের জামিন আবেদন (আইন ও বিচার)        আগামী বছর থেকে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করা হবে: কৃষিমন্ত্রী (কৃষি ও প্রকৃতি)        দেশের সব ক্ষেত্রে সমন্বিত উন্নয়ন হচ্ছে: শিল্পমন্ত্রী (জাতীয়)        দুর্নীতির মামলায় নোয়াখালী জেলা জজ আদালতের নাজির গ্রেফতার (জেলার খবর)        খালেদার ২ মামলায় অভিযোগ গঠনের শুনানি ১ সেপ্টেম্বর (আইন ও বিচার)      

রূপালী ব্যাংকের ১৫ কোটি টাকা আত্মসাত: পলাতক আসামিকে গ্রেফতারে হাইকোর্টের নির্দেশ

Logo Missing
প্রকাশিত: 07:44:26 pm, 2019-04-08 |  দেখা হয়েছে: 1 বার।

আজ ডেক্সঃ রূপালী ব্যাংকের ১৫ কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনায় দ-প্রাপ্ত পলাতক আসামিকে গ্রেফতার করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। প্রয়োজনে ইন্টারপোলের মাধ্যমে রেড এলার্ট জারি করতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে ব্যাংক কর্মকর্তা অব্যাহতি দেওয়ার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তলব করা হয়েছে। আদালতে আদেশে অব্যাহতি পাওয়া তিন কর্মকর্তাকে হাজিরের পর গত রোববার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। বিক্রি করা জমি ও ফ্ল্যাট অবিক্রীত দেখিয়ে ঋণ তুলে ১৫ কোটি টাকা গ্রাহকের নামে বিতরণ করে আত্মসাৎ করার অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ২০১২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর ৫ জনকে আসামি করে রাজধানীর মতিঝিল থানায় মামলা করে। এ মামলায় ২০১৩ সালের ২৯ আগস্ট তিন ব্যাংক কর্মকর্তাকে অব্যাহতি দিয়ে এভারেস্ট হোল্ডিং অ্যান্ড টেকনোলজিস লিমিটেডের চেয়ারম্যান আবু বোরহান চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক এএইচএম বাহাউদ্দীন ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক উপ-পরিচালক বর্তমানে পরিদর্শক মো. আবদুল কুদ্দুস খানকে আসামি করে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করে দুদক। এ মামলায় ঢাকার বিশেষ জজ আদালত ২০১৫ সালের ১২ এপ্রিল এভারেস্ট হোল্ডিং অ্যান্ড টেকনোলজিস লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালককে যাবজ্জীবন কারাদ- এবং প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করেন। অপর আসামিকে খালাস দেন। এরপর সাজাপ্রাপ্ত এএইচএম বাহাউদ্দীন হাইকোর্টে আপিল করে জামিন আবেদন করেন। তার জামিন আবেদনের ওপর শুনানিকালে হাইকোর্ট তিন কর্মকর্তাকে তলব করেন। তারা হলেন- রুপালী ব্যাংকের স্থানীয় কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপক এসএম আতিকুর রহমান, উপ-মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আলী ও সিনিয়র প্রিন্সিপাল কর্মকর্তা মো. আবদুস সামাদ সরকার। আদালতে এএইচএম বাহাউদ্দীনের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন মো. রিজাউল ইসলাম রিয়াজ। দুদকের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন হাসান এম এস আজিম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না। তিন ব্যাংক কর্মকর্তার পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শেখ ওবায়দুর রহমান। পরে আমিন উদ্দিন মানিক জানান, রুপালী ব্যাংকের ১৫ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ-প্রাপ্ত পলাতক আসামিকে ধরতে পুলিশের আইজি, র‌্যাবের ডিজি, ডিএমপি কমিশনার ও সব আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে নির্দেশনাসহ প্রয়োজনে ইন্টারপোলের মাধ্যমে রেড এলার্ট জারির নির্দেশনা দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে ১৫ এপ্রিলের মধ্যে হাইকোর্টকে জানাতে বলেছেন। যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ-প্রাপ্ত পলাতক আসামি হলেন- এভারেস্ট হোল্ডিং অ্যান্ড টেকনোলজিস লিমিটেডের চেয়ারম্যান আবু বোরহান চৌধুরী। হাসান এম এস আজিম বলেন, এ মামলার এজাহারে তিন কর্মকর্তা ছিল। পরে তাদের বাদ দিয়ে চার্জশিট দেওয়া হয়। এ বিষয়টির ব্যাখ্যা দিতে ১৫ এপ্রিল মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে (আইও) তলব করেছেন।