ঢাকা   শুক্রবার ২২ নভেম্বর ২০১৯ | ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  আফগানদের উড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ (খেলাধুলা)        আচমকাই দিন-রাতের টেস্ট খেলতে প্রস্তাব দেয় ভারত (খেলাধুলা)        মুমিনুলের আক্ষেপ সাইফের জন্য (খেলাধুলা)        এসএ গেমসের মেয়েদের দল রুমানাকে ছাড়াই (খেলাধুলা)        ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান (খেলাধুলা)        রোহিঙ্গা নির্যাতন : আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের মুখোমুখি সু চি (আন্তর্জাতিক)        ভারতের সঙ্গে অত্যাধুনিক নৌ-অস্ত্র চুক্তি অনুমোদন যুক্তরাষ্ট্রের (আন্তর্জাতিক)        আমদানি করা নেতার কথায় বিশ্বাস করবেন না: মমতা (আন্তর্জাতিক)        যৌন কেলেঙ্কারি: দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ালেন প্রিন্স অ্যান্ড্রু (আন্তর্জাতিক)        কলকাতায় রুনা লায়লা (বিনোদন)      

নতুন অর্থবছরের শুরুতেই বাড়ছে গ্যাসের দাম

Logo Missing
প্রকাশিত: 12:07:54 am, 2019-06-03 |  দেখা হয়েছে: 11 বার।

আজ ডেক্সঃ নতুন অর্থবছরের শুরুতেই বাড়ছে গ্যাসের দাম। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) আইনি জটিলতা কাটিয়ে গ্যাসের বর্ধিত দাম কার্যকরের ঘোষণা দিতে যাচ্ছে। তবে সরকারের ভর্তুকি প্রদানের ওপর গ্যাসের দাম কতভাগ বাড়বে তা নির্ভর করছে। সরকার ওই খাতে যতো বেশি ভর্তুকি দেবে, গ্যাসের দামও ততো কম বাড়বে। মূলত বিদেশ থেকে বেশি দামে আমদানিকৃস এলএনজি গ্যাসের দাম সমন্বয় করতেই গ্যাসের দাম বাড়ানো হচ্ছে। বিগত ফেব্রুয়ারিতে গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলো কমিশনের কাছে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব নিয়ে আসে। কোম্পানিগুলো গড়ে ১০২ ভাগ গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব করে।এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন এবং জ্বালানি বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বর্তমানে জাতীয় গ্রিডে প্রতিদিন ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি সরবরাহ করা হচ্ছে। তাছাড়া দেশে আনা হয়েছে আরো একটি এলএনজি টার্মিনাল। তাতে করে জাতীয় গ্রিডে যোগ হবে আরো ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি। তাতে দেশে গ্যাস সরবরাহে ১২ থেকে ১৪ হাজার কোটি টাকার ঘাটতি তৈরি হবে। আর ওই ঘাটতির পুরোটা ভোক্তার কাছ থেকে তোলা কঠিন। সেজন্য গ্যাস বিক্রিতে সরকারকে ভর্তুকি দিতে হবে। নির্বাচনের আগে আগে মূল্য সমন্বয়ের যে ঘোষণা দেয়া হয়েছিল সেখানে গ্যাসের দাম না বাড়িয়ে সরকারকে ৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দেয়ার সুপারিশ করেছিল কমিশন। গত ১৬ অক্টোবর কমিশন গ্যাসের মূল্য সমন্বয়ের ওই ঘোষণা দেয়। সূত্র জানায়, বিইআরসি গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ঘোষণা দিতে গিয়ে আইনী জটিলতায় পড়ে। প্রথমত কমিশন আইনে এক বছরে দু’বার মূল্য সমন্বয়ের বিজ্ঞপ্তি জারির কোন বিধান নেই। আবার কমিশন আইনে শুনানির ৯০ দিনের মধ্যে দাম ঘোষণা করার বিধান রয়েছে। যদিও ৯০ দিনের ঘোষণার বেলায় আইনে একটু ফাঁক রাখা হয়েছে। এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন আইন ২০০৩ এর ৭ম অধ্যায়ের ৩৮ ধারা ট্যারিফ বা দাম নির্ধারণের ৬-এ বলা হয়েছে, লাইসেন্সি ট্যারিফ পরিবর্তনের প্রস্তাব বিস্তারিত বিবরণসহ কমিশনের নিকট উপস্থাপন করবে। কমিশন আগ্রহী পক্ষকে শুননি দেয়ার পর ট্যারিফ পরিবর্তনের প্রস্তাবসহ সকল তথ্যাদি প্রাপ্তির ৯০ দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানাবে। সকল তথ্যাদি প্রাপ্তির সময়কে কশিমন পিছিয়ে দেখালে আইনের এই ধারা চ্যালেঞ্জের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তবে কমিশন আইনের ৭ম অধ্যায়ের ৩৮ ধারা ট্যারিফ বা দাম নির্ধারণের ৫-এ বলা হয়েছে, কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত ট্যারিফ কোন অর্থবছরে একবারের বেশি পরিবর্তন করা যাবে না। যদি না জ¦ালানি মূল্যের পরিবর্তনসহ অন্য কোনরূপ পরিবর্তন ঘটে। গত ১৬ অক্টোবর একদফা মূল্য সমন্বয়ের পর কমিশন আবার একই অর্থবছরে নতুন করে দাম বৃদ্ধির ঘোষণা দিতে পারে না। সূত্র আরো জানায়, গ্যাস বিতরণ কোম্পানি চাইলেও পহেলা জুলাইয়ের আগে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি কার্যকরের ঘোষণা দিলে কমিশনকে বিপাকে পড়তে হবে। এর আগেও এক বছরে দুই ধাপে গ্যাসের দাম বাড়ালে উচ্চ আদালত দ্বিতীয়ধাপের দাম বৃদ্ধির ঘোষণাকে আটকে দেয়। কারণ কমিশন আইন অনুযায়ী তারা একই অর্থবছরে দুবার মূল্য সমন্বয়ের ঘোষণা দিতে পারে না। এদিকে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ঘোষণা সম্পর্কে কমিশনের এক সদস্য নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানান, কমিশনকে আইনগত দিকগুলো দেখতে হচ্ছে। সেজন্যই ঘোষণা দিতে দেরি হচ্ছে। আইনে এক অর্থবছরে দু’বার দাম বৃদ্ধির বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে। কিন্তু কমিশনকে দুটি বিষয়ই দেখতে হচ্ছে। আবার শুনানির ৯০ দিনের মধ্যে ঘোষণার বিষয়টিও দেখতে হচ্ছে। অন্যদিকে সম্প্রতি বিদ্যুৎ, জ¦ালানি এবং খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ জানিয়েছেন, এলএনজি আমদানির ব্যয় বহন করা সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। আবার সরকার এক সঙ্গে জ¦ালানির দর খুব বেশি বৃদ্ধি করতে চায় না, যাতে জনজীবনে বিপর্যয় নেমে আসে। তবে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি সহনীয়ই থাকবে।