ঢাকা   ২০ জুলাই ২০১৯ | ৫ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  দিনাজপুরে বিপৎসীমার কাছাকাছি ৩ নদীর পানি (জেলার খবর)         সিরাজগঞ্জে বিপৎসীমার ওপরে যমুনার পানি (জেলার খবর)        এরশাদের প্রতি দলীয় নেতাকর্মীদের শেষ শ্রদ্ধা (জাতীয়)        সংসদ প্রাঙ্গনে এরশাদের জানাজায় রাষ্ট্রপতি (জাতীয়)        ভালো শিক্ষকদের ক্লাস সম্প্রচারে টিভি চ্যানেল খোলার চিন্তা: শিক্ষামন্ত্রী (শিক্ষা)        পরিকল্পিত শিল্প এলাকার বাইরে বিদ্যুৎ-গ্যাস সংযোগ নয়: প্রতিমন্ত্রী (জাতীয়)        রাজস্ব বাড়াতে জেলা-উপজেলায় কমিটি চান ডিসিরা (জাতীয়)        শেষ হলো পদ্মা সেতুর পাইল বসানোর কাজ (জাতীয়)        বৃষ্টি ঝরবে আরো দু’তিন দিন (জাতীয়)        সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, পানিবন্দি লাখো মানুষ (জেলার খবর)      

নারায়ণগঞ্জে ১২ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ গ্রেফতার

Logo Missing
প্রকাশিত: 12:01:24 am, 2019-07-05 |  দেখা হয়েছে: 8 বার।

আজ ডেক্সঃ নারায়ণগঞ্জে ১২ জন ছাত্রীকে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির অভিযোগে এক মাদ্রাসা অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সদর উপজেলার মাহমুদপুর এলাকায় বাইতুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান র‌্যাব ১১-এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন। গ্রেফতার আল আমিন কুমিল্লার মুরাদনগর এলাকার ভূঁইয়াপাড়া এলাকার রেনু মিয়ার ছেলে। মাদ্রাসার ভেতরে পরিবার নিয়ে থাকতেন তিনি। তার মোবাইল ফোন ও কম্পিউটার থেকে পর্ন ভিডিও উদ্ধার করা হয়েছে বরে র‌্যাব জানিয়েছে। র‌্যাবের সিও কাজী শামসের উদ্দিন চৌধুরী জানান, গত ২৭ জুন সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি কান্দাপাড়া অক্সফোর্ড হাইস্কুলের শিক্ষক আরিফুল ইসলামকে শিক্ষার্থীদের ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। ওই ঘটনা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর বাইতুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসার এক শিশু শিক্ষার্থী তার মাকে জানায়, ওই স্কুলের শিক্ষকের তো বিচার হলো, কিন্তু তাদের প্রধান শিক্ষকের তো বিচার হলো না। ওই অভিভাবক বিষয়টি র‌্যাবকে জানায়। পরে র‌্যাব অভিযান চালিয়ে আল-আমিনকে আটক করে। কাজী শামসের উদ্দিন চৌধুরী জানান, এখন পর্যন্ত আল-আমিনের নির্যাতনের শিকার ১২ শিক্ষার্থীর খোঁজ পাওয়া গেছে। আল-আমিনের স্ত্রী পর্দানশীল। তিনি মাদ্রাসার পেছনের ঘরে থাকেন। এই সুযোগে আল-আমিন প্রাইভেট পড়ানোর কথা বলে, নানা কৌশল অবলম্বন করে শিক্ষার্থীদের ধর্ষণ ও যৌন হেনস্তা করে আসছিল। শিশুদের যৌন হেনস্তার অনেক প্রমাণ তার কম্পিউটারে পাওয়া গেছে। সেই কম্পিউটারও র‌্যাব জব্দ করেছে। ২০১৫ সালে ফতুল্লা থানার ভুঁইঘরের মাহমুদপুর পাকা রাস্তা এলাকায় বাইতুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন আল আমিন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়ানোর সময় নানাভাবে ব্ল্যাকমেইল করে, আবার কোনও শিক্ষার্থীর ছবি পর্নোগ্রাফি নায়িকার মাথা কেটে বসিয়ে দিয়ে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার কথা বলে এবং বাবা-মাকে দেখিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ ও যৌন হেনস্তা করে আসছিল। তিনি শিশুশ্রেণি থেকে পঞ্চশ শ্রেণির একাধিক ছাত্রীকে এভাবে যৌন হেনস্তা করে আসছিল বলে জানায় র‌্যাব। এদিকে মাওলানা আল-আমিনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। এলাকাবাসী বলেন, তাকে কঠিন শাস্তি দেওয়া হোক, যাতে ভবিষ্যতে আর কেউ এমন অপকর্ম করার সাহস না পায়। র‌্যাবের সহকারী পরিচালক পুলিশ সুপার আলেপ উদ্দিন জানান, আল-আমিনের বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফি এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। কোনও শিক্ষার্থীর অভিভাবক চাইলে ফতুল্লা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করতে পারবেন। উল্লেখ্য, গত ২৭ জুন বাইতুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসা থেকে মাত্র ২ হাজার গজ দূরে অক্সফোর্ড হাইস্কুলের সহকারী শিক্ষক আরিফুল ইসলামকে ২০ শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার করে র‌্যাব। ওই শিক্ষককে প্রশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে অক্সফোর্ড স্কুলের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামকেও গ্রেফতার করা হয়।