ঢাকা   মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ২ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  তরঙ্গ মহিলা কল্যাণ সংস্থা,জামালপুরের আয়োজনে পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তিতে সালিশ বিষয়ক প্রশিক্ষন (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে বিচারকদের সাথে আস্থা প্রকল্পের কর্মশালা (জামালপুরের খবর)        বিআরটিসি এসি বাসে কোন অনিয়ম বরদাস্ত করা হবে না-জেলা প্রশাসন (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে বৃক্ষমেলা সমাপ্ত (জামালপুরের খবর)        ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরীর রোগমুক্তি কামনায় মৎস্যজীবী লীগের দোয়া মাহফিল (জামালপুরের খবর)        শেরপুরে শিশু ফোরামের আটটি শাখাকে সম্মাননা প্রদান (জেলার খবর)        শ্রীবরদীতে স্বাক্ষরতা প্রকল্পের উদ্বোধন (জেলার খবর)        রংপুর উপনির্বাচন: সরে দাঁড়ানো ঘোষণা আ. লীগ প্রার্থীর (রাজনীতি)        ছাত্রলীগের কেউ অনিয়ম করলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা: নাহিয়ান (রাজনীতি)        মেট্রোরেলের নিরাপত্তায় পুলিশের আলাদা ইউনিট গঠনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর (জাতীয়)      

হবিগঞ্জে শিক্ষকের বেতের আঘাতে শিক্ষার্থীর চোখ নষ্টের আশঙ্কা

Logo Missing
প্রকাশিত: 07:48:14 pm, 2019-09-09 |  দেখা হয়েছে: 2 বার।

আ.জা.ডেক্সঃ হবিগঞ্জে শিক্ষকের বেতের আঘাতে এক শিশু শিক্ষার্থীর চোখ নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে বলে চিকিৎসক জানিয়েছেন। সদর উপজেলার যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির এই ছাত্রীকে ঢাকা চক্ষু হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। হবিগঞ্জ থানার ওসি মো. মাসুক আলী জানান, গত রোববার ক্লাস চলাকালে ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিরঞ্জন দাশ বেত ছুড়ে মারলে তা সরাসরি ওই শিশুটির চোখে লাগে। এতে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। শিক্ষার্থীদের মধ্যে হৈ চৈ হলে স্থানীয়রা গিয়ে তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালের চিকিৎসক মিঠুন রায় বলেন, চোখের ভেতরে আঘাত লাগার কারণে খুব ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চোখটি ভাল হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা চক্ষু হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। শিক্ষক নিরঞ্জন দাশ আঘাত করার কথা স্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, আমি দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পড়া নিচ্ছিলাম। এ সময় যারা পড়া পারছিল না তাদের বেত্রাঘাত করি। এ সময় ক্লাসের দরজার সামনে কিছু শিক্ষার্থী দাঁড়িয়ে হৈচৈ করছিল। আমি তাদের বারবার ধমক দিলেও তারা সেখানে দাঁড়িয়ে থাকলে হাতের বেত ছুড়ে মারলে তা গিয়ে শিশুটির চোখে লাগে। এটি আমার অনিচ্ছাকৃত ভুল। শিক্ষার্থীদের বেত দিয়ে আঘাত করার কোনো বিধান নেই বলে জানিয়েছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।