ঢাকা   মঙ্গলবার ২১ জানুয়ারী ২০২০ | ৮ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  ঝিনাইগাতীতে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত (জেলার খবর)        জামালপুর ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের উদ্বোধন (জামালপুরের খবর)        আড়াই লাখ টাকা বরাদ্দ পাওয়ার পরও মেরামত হয়নি নলকূপটি (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে কালেক্টরেট সহকারী সমিতি (বাকাসস) এর কর্মবিরতি শুরু (জামালপুরের খবর)        ঝিনাইগাতীতে আন্তঃ প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত (জেলার খবর)        জামালপুরে পল্লী মঙ্গল কর্মসূচী কেন্দ্রে শীতবস্ত্র বিতরণ (জামালপুরের খবর)        প্রবীণ ফটো সাংবাদিক কানুর মৃত্যুতে শ্রাদ্ধ ও শোক বই এ সাক্ষর (জামালপুরের খবর)        রৌমারী সীমান্তে ভারতীয় ৫টি মহিষ আটক (জামালপুরের খবর)        নালিতাবাড়ীতে মালিঝি নদীর খনন কার্যক্রম শুরু (জেলার খবর)        শেরপুরের ব্র্যান্ডিং সুগন্ধি চাল তুলশীমালা ঘ্রান ছড়াচ্ছে দেশে-বিদেশে (জেলার খবর)      

এবার যুবলীগ নেতা জি কে শাশীম আটক- নগদ ২ কোটি টাকা, ১৬৬ কোটি টাকার এফডিআর, অস্ত্র উদ্ধার

Logo Missing
প্রকাশিত: 12:58:01 pm, 2019-09-21 |  দেখা হয়েছে: 8 বার।

ঢাকা ডেক্স: যুবলীগের সমবায় বিষয়ক সম্পাদক এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমকে আটক করেছে র‌্যাব। তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজির অভিযোগ রয়েছে। এ সময় তার কার্যালয়ের ভেতর থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র, মাদক, নগদ অর্থ ও ১৬৫ কোটি ৮০ লাখ টাকার এফডিআর চেক উদ্ধার করা হয়। গতকাল শুক্রবার দুপুরে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম বিষয়টি নিশ্চিত করেন। রাজধানীর গুলশান নিকেতন ৫ নম্বর সড়কের ১৪৪ নম্বর ভবনে শামীমের কার্যালয় ঘিরে অভিযান চালায় র‌্যাব। শামীমের মালিকানাধীন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিকেবি অ্যান্ড কোম্পানির কর্মচারী দিদারুল আলম জানান, সকালে নিকেতনের ৫ নম্বর সড়কের ১১৩ নম্বর ভবন শামীমের বাসায় কয়েকজন সাদা পোশাকে প্রবেশ করেন। সেখানে প্রায় তিন ঘণ্টা অবস্থানের পর শামীমকে সঙ্গে নিয়ে তার প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যালয় ১৪৪ নম্বর ভবনে অভিযান শুরু করে র‌্যাব। জানা যায়, শামীমের পাশাপাশি তার ছয় দেহরক্ষীকেও আটক করা হয়েছে। যুবলীগের সমবায় বিষয়ক সম্পাদক এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমের অস্ত্রের লাইসেন্স থাকলেও অবৈধ ব্যবহারের অভিযোগ ছিল বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। তিনি বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়েছে। এখানে তার মায়ের ও তার নামে বিপুল পরিমাণ এফডিআর পাওয়া গেছে। তার অস্ত্রের লাইসেন্স থাকলেও অবৈধ ব্যবহারের অভিযোগ ছিলো। কী ধরনের অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কোনো সুনির্দিষ্টি অভিযোগ ছাড়া অভিযান পরিচালনা করে না। এখন আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নির্দোষ প্রমাণিত হলে তিনি ছাড়া পাবেন। এফডিআরের অর্থের উৎসের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, কোনো অবৈধ উৎস থেকে এ অর্থ এসেছে বলে আমাদের কাছে তথ্য এসেছে। এ বিষয়ে তদন্ত করে মানিল্ডারিংয়ের আইনের মামলা করা হবে। এ বিষয়ে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, সুনির্দিষ্ট ও টেন্ডারবাজির সে অভিযোগের ভিত্তিতে প্রথমে আমরা তার বাসা ঘেরাও করি, সেখান থেকে তার সাতজন দেহরক্ষী, অস্ত্র, শর্টগান ও গুলি উদ্ধার করা হয়। এরপর তাকে সঙ্গে নিয়ে তার অফিসে তল্লাশি চালানো হয়। অভিযানে ১৬৫ কোটি টাকার বেশি এফডিআর চেক পাওয়া যায়। এর মধ্যে ১৪০ কোটি টাকার এফডিআর তার মায়ের নামে, বাকি ২৫ কোটি টাকা তার নামে। এছাড়া উদ্ধার হওয়া এক কোটি ৮০ লাখ টাকার মধ্যে নগদ অর্থ ও মার্কিন ডলার রয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান না থাকলে কোনো এফডিআর থাকার নিয়ম নেই, অথচ অধিকাংশ এফডিআরই তার মায়ের নামে। তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সার্বিক বিষয়গুলো তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সুনির্দিষ্ট চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজির অভিযোগ গ্রেফতার হওয়া জিকে শামীম একসময় ছিলেন বিএনপির যুব সংগঠন যুবদল নেতা। পরে ভোল বদলে যোগ দেন আওয়ামী লীগের যুব সংগঠন যুবলীগে। বাগিয়ে নেন দলের পদ। হয়ে ওঠেন প্রভাবশালী নেতা, বাগাতে থাকেন সরকারি টেন্ডার। একসময় তার নামই হয়ে যায়, টেন্ডার শামীম। যুবলীগ নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, জিকে শামীম একসময় যুবদল করতেন। যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদকও ছিলেন। ছিলেন বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাসের ডান হাত। কিন্তু সদা ক্ষমতাপিয়াসী শামীম আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর পাল্টাতে থাকেন ভোল। যুবদল ছেড়ে ভিড়তে থাকেন যুবলীগের দিকে। একসময় পান যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদকের পদ। তবে যুবলীগের নেতারা বলছেন আসলে তার যুবলীগের কোনো পদ নেই। তিনি নিজে নিজেই যুবলীগের নেতা এবং কেন্দ্রীয় সমবায় বিষয়ক সম্পাদক দাবি করতেন। আবার নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বলেও শোনা যাচ্ছে। প্রতিটি সরকারি কাজের টেন্ডার ছিল তার নিয়ন্ত্রণে। একসময় তিনি ‘টেন্ডার শামীম’ নামে পরিচিত হয়ে ওঠেন। সব সময় তার সঙ্গে রাখতেন ছয়জন অস্ত্রধারী দেহরক্ষী। জিকে শামীম গ্রেফতার হওয়ার পর তার বিষয়ে জানতে চাইলে যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ কোনো কথা বলতে চাননি। তিনি বলেন, আমরা পরে এ বিষয়ে জানাবো। এদিকে, জি কে শামীমের কার্যালয়ে অন্তত ১৩টি সম্মাননা-পদক পাওয়া গেছে। ‘ব্যবসা-বাণিজ্য ও সংগঠন এবং সমাজসেবায় অবদান রাখায়’ বিভিন্ন সময় তাকে এ সম্মাননা-পদক দিয়েছে নানা সংগঠন। তার পাওয়া পুরস্কারের তালিকায় রয়েছে- ফিদেল কাস্ত্রো অ্যাওয়ার্ড ২০১৭, মাদার তেরেসা গোল্ড মেডেল-২০১৭, অতীশ দীপঙ্কর গোল্ড মেডেল-২০১৭, মহাত্মা গান্ধী পিস অ্যাওয়ার্ড-২০১৭, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদক-২০১৮ প্রভৃতি। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর গুলশানের নিকেতনে ৫ নম্বর সড়কের ১৪৪ নম্বর ভবনে জি কে শামীমের কার্যালয়ে র‌্যাবের অভিযানের পর এই পদক দেখা যায়।