ঢাকা   মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ | ২৮ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  বেসরকারি খাতে চলাচলকারী ট্রেনগুলোর আয় বাড়লেও কমেছে রেলের আয় (জাতীয়)        প্রশাসনেও শুদ্ধি অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার (জাতীয়)        সিরিজে অধিনায়কের চোখে প্রাপ্তি (ক্রিকেট)        হারের কারণ জানা থাকলেও সমাধান অজানা (ক্রিকেট)        রুবেলের ৭ উইকেট ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে (ক্রিকেট)        ন্যাটোতে রুশ অস্ত্রের কোনো ঠাঁই নেই: ট্রাম্প (আন্তর্জাতিক)        ইরাকে সরকার বিরোধী বিক্ষোভে ১ মাসে নিহত ৩১৯ (আন্তর্জাতিক)        স্পেনের সাধারণ নির্বাচনে ফের জয়ী ক্ষমতাসীন সোশ্যালিস্ট পার্টি (আন্তর্জাতিক)        বাবরি মসজিদের রায় : জমি সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত ২৬ নভেম্বর (আন্তর্জাতিক)        বিক্ষোভের মুখে পদত্যাগ করলেন বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট (আন্তর্জাতিক)      

বিদ্যুৎ সংযোগের নামে টাকা আদায়!

Logo Missing
প্রকাশিত: 03:49:23 pm, 2019-10-20 |  দেখা হয়েছে: 2 বার।

শ্রীবরদী সংবাদদাতা:

শেরপুরের শ্রীবরদীতে বিদ্যুৎ সংযোগের নামে স্থানীয় একটি প্রতারক চক্র হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। উপজেলার রানীশিমুল ইউনিয়নের হাতিবর টিলা পাড়া, পূর্ব মালাকোচা ও খ্রিষ্টানপাড়ার গ্রামের সহজ সরল চার শতাধিক লোকের কাছ থেকে হাজার হাজার করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এ প্রতারক চক্র। টাকা দিয়েও বিদ্যুৎ না পাওয়ায় স্থানীয়সহ জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন ভুক্তভোগিরা। (১৯ সেপ্টেম্ব) শনিবার সরেজমিন ঘুরে ও ভুক্তভোগিদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ওঠে আসে এমন তথ্য।

জানা যায়, শ্রীবরদী উপজেলার রানীশিমুল ইউনিয়নের প্রত্যন্ত পাহাড়ি এলাকা হাতিবর টিলাপাড়া, পূর্ব মালাকোচা ও খ্রিষ্টানপাড়া গ্রাম। এসব গ্রামে দুই সহা¯্রাধিক লোকের বসবাস। এসব গ্রামে মাঝে মধ্যেই হামলা চালায় বন্যহাতি। এতে জানমাল ও ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়। এজন্য শেরপুর-৩ আসনের এমপি প্রকৌশলী একেএম ফজলুল হকের সুপারিশে এলাকাকে আলোকিত করতে প্রায় তিন বছর আগে বিদ্যুৎতের লাইন নিয়ে যায় পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ। এর পর থেকে ওইসব গ্রামের সহজ সরল লোকজনের কাছ থেকে বিদ্যুৎ সংযোগের নামে স্থানীয় সেলিম মিয়া, মোশারফ ও অজিতসহ কয়েকজনের একটি প্রতারক চক্র হাতিয়ে নেয় হাজার হাজার টাকা। চক্রটি প্রায় ৪শ লোকের কাছ থেকে ১৫শ টাকা হতে ৯ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নেয়। এর মধ্যে কারো ঘরে গিয়েছে বিদ্যুৎতের বোর্ড। আবার কারো ঘরে কিছুই যায়নি। চক্রটি বলছে ৬ হাজারের নিচে যারা টাকা দিয়েছে তাদের বাড়িতে বিদ্যুৎ দেয়া হবে না। কেউবা ৬ হাজার টাকার ওপরে দিয়েও বিদ্যুৎ পাচ্ছেন না। শনিবার সরেজমিন গেলে কথা হয় হাতিবার টিলাপাড়া, পূর্ব মালাকোচা, খ্রিষ্টানপাড়া ও হাতিবার গ্রামের অনেকের সাথে। তারা বলেন, ওই চক্রটি ২/৩ বছর আগে থেকে টাকা উত্তোলন শুরু করেছে। এখনো তারা টাকা উত্তোলন করছে। হাতিবার গ্রামের আলী হোসেন বলেন, আমি দুটি মিটারের জন্য ৯ হাজার টাকা দিয়েছি। তারা আমার কাছ থেকে আরো টাকা চায়। টাকা না দিলে তারা আমার বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ দিবেনা।

স্থানীয়রা জানান, সম্প্রতি এ ব্যাপারে ওই প্রতারক চক্রটির বিরুদ্ধে হাতিবর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আলোচনায় বসেন গ্রামবাসীরা। এতেও ওই চক্রটি প্রত্যেকের কাছ থেকে ৬ হাজার টাকার ওপরে দেয়ার জন্যে চাপ প্রয়োগ করে। যদি কেউ না দিতে পারে তাহলে তার ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হবে না জানিয়ে দেয় চক্রটি। এমন পরিস্থিতি থেকে উত্তোরণের জন্যে গত শনিবার বিদ্যুৎ বিভাগসহ প্রশাসনের হস্তক্ষেপের দাবি তুলে একটি লিখিত অভিযোগ পত্র প্রেরণ করেন গ্রামবাসীরা। এ সময় হাতিবর টিলাপাড়া গ্রামের ইসমাইল হোসেন বলেন, আমরা ৩ বছর আগে বিদ্যুৎতের জন্যে টাকা দিছি। অহনও বিদ্যুৎ পাইলাম না। একি গ্রামের বাসিন্দা ওবায়দুল রহমান বলেন, ৬ হাজার করে টাকা দেয়ার পরেও আরো টাকা দাবি করছে। আমরা গরিব। দিন মজুরি না খাটলে পেটের ভাত জোটেনা। অথচ এতো টাকা ক্যামনে দিমু? একি গ্রামের বাসিন্দা ইয়াকুব আলী বলেন, টাকা ফেরত চাইলে প্রতারক চক্রটি নানা হুমকি ধামকি দেয়। এখন টাকাও দেয় না। বিদ্যুৎও দেয় না। ভুক্তভোগিদের অভিযোগ, হাতিবর টিলাপাড়া গ্রামের সেলিম পল্লী বিদ্যুৎতের ঠিকাদারের সাথে যোগসাজসে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার নামে প্রায় ৪শ গ্রাহকের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয়। টাকা দেয়ার ২/৩ বছর পেরিয়ে যাওয়ার পরেও বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়ায় গ্রাহকদের মধ্যে চরম প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। সম্প্রতি বিষয়টি তদন্ত পূর্বক দ্রুত প্রয়োজনীয ব্যবস্থা দাবি তুলেছেন ওইসব গ্রামবাসীরা। এছাড়াও ওঠান বৈঠকের মাধ্যমে সেলিম, আজিদ ও মোশারফের কাছ থেকে টাকা ফেরত নিতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দ্বারস্থ হচ্ছেন ভুক্তভোগিরা। রানীশিমুল ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ রানা বলেন, বিষয়টি পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। এছাড়াও যদি টাকা নিয়ে থাকে প্রমাণ পেলে টাকা ফেরতের জন্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। পল্লী বিদ্যুৎতের শ্রীবরদী উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুর রশিদ বলেন, বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে কোনো দালাল ধরতে হয় না। এমনকি কোনো টাকার প্রয়োজন নেই। তদন্ত করে অভিযুক্ত ঠিকাদার ও স্থানীয় দালালসহ প্রতারক চক্রটির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ সময় ওই এলাকায় দ্রত বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার আশ্বাসও দেন।

Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!