ঢাকা   মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  পেটে গজ-ব্যান্ডেজ রেখে সেলাই, রংপুরে প্রসূতির মৃত্যু (দেশজুড়ে)        নওগাঁয় ট্রাক চাপায় মা-মেয়ে নিহত (ঘটনা-দুর্ঘটনা)        রাজশাহীর সেই আমবাগানকে পাখির জন্য অভয়ারণ্য করার উদ্যোগ (কৃষি ও প্রকৃতি)        সড়ক পরিবহন আইনের প্রতিবাদে বিভিন্ন জেলায় বাস বন্ধ (দেশজুড়ে)        শেরপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত (জেলার খবর)        যত চাপই থাকুক সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়ন হবে: সেতুমন্ত্রী (জাতীয়)        বিস্ফোরণ গ্যাস লাইন থেকে হয়নি: কেজিডিসিএল (ঘটনা-দুর্ঘটনা)        নতুন পরিবহন আইন কার্যকরে প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়াচ্ছে বৈধ ও দক্ষ চালকের সঙ্কট (জাতীয়)        বঙ্গবন্ধু বিপিএলে কে কোন দলে (ক্রিকেট)        এবারের বিপিএলে যা কিছু নতুন (ক্রিকেট)      

মেনন তাঁর বক্তব্য প্রত্যাহারের সুরে কথা বলছেন: ওবায়দুল কাদের

Logo Missing
প্রকাশিত: 11:33:39 am, 2019-10-24 |  দেখা হয়েছে: 3 বার।

ঢাকা ডেক্স:

বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট নিয়ে মন্তব্য করে আলোচনার মুখে থাকা সরকারের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের ফের সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেছেন, রাশেদ খান মেনন তাঁর বক্তব্য প্রত্যাহারের সুরে কথা বলছেন। তিনি ইউটার্ন নিয়ে ফেলেছেন অলরেডি। তিনি বলেছেন, তিনি এভাবে বলেননি। তাঁর বক্তব্যটা খন্ডিতভাবে প্রকাশ করা হয়েছে। তবে আমি এটুকু বলতে পারি, একজন শরিক দলের নেতার জন্য ১৪ দল ভাঙতে পারে না। ১৪ দল অটুট থাকবে। ১৪ দলের ঐক্যে কোনো ভাঙন আসবে না। একজন ব্যক্তি যদি ভিন্নমত পোষণ করেন, একজন ব্যক্তির জন্য একটা জোটের অপমৃত্যু হতে পারে না। তাঁর অবস্থান আগামি দিনে কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, তা আমি নিশ্চিত না। শরিক দলের একজন নেতার জন্য ১৪ দলে ভাঙন হবে না। গতকাল বুধবার রাজধানীর ধানমন্ডি হোয়াইট হল কনভেনশন সেন্টারে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় বক্তব্য দেওয়ার সময় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

বিগত নির্বাচনে আমিও নির্বাচিত হয়েছি। তারপরও আমি সাক্ষ্য দিয়ে বলছি, গত নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি। জাতীয়, উপজেলা এবং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কোথাও ভোট দিতে পারেনি দেশের মানুষ, নিজের দলের বরিশাল জেলা কমিটির সম্মেলনে এমন বক্তব্য দিয়ে আলোচনার ঝড় তোলেন ক্ষমতাসীন ১৪ দলীয় জোটের অন্তর্ভুক্ত সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেনন। এ বক্তব্যে ব্যাপক আলোচনা শুরু হলে পরদিন রোববার বিবৃতি দিয়ে মেনন বলেন, তাঁর বক্তব্য সম্পূর্ণ উপস্থাপন না করে অংশবিশেষ উত্থাপন করায় এই বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। এর পরদিন এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের কাছে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি উল্টো প্রশ্ন তোলেন, তিনি যদি বলেই থাকেন, আমার প্রশ্ন হচ্ছে এতদিন পরে কেন? এই সময়ে কেন? নির্বাচনটা তো অনেক আগে হয়ে গেছে। আরেক প্রশ্ন সবিনয়ে, মন্ত্রী হলে কি তিনি এ কথা বলতেন? আর কোনো কিছু বলতে চাই না। গতকাল বুধবার সাংবাদিকরা একই বিষয়ে ফের জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, এখন তিনি (মেনন) একটা দলের সভাপতি। পত্র-পত্রিকায় নানা ধরনের খবর আসছে। এর প্রতিক্রিয়ায় এবং অন্যান্য বিষয়ও আছে। তাদের দলের মূল্যায়নে তাঁর অবস্থান কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, সেটা আমার মন্তব্য করা সমীচীন নয়। আমার সঙ্গে মোহাম্মদ নাসিম ভাইয়ের কথা হয়েছে। ১৪ দল বলেছে, রাশেদ খান মেননের বক্তব্য নিয়ে তাঁরা নিজেরা আলাপ-আলোচনা করেছেন। বিষয়টি আলাপ-আলোচনার পর্যায়ে রয়েছে, পরে সিদ্ধান্ত নেবে।

আওয়ামী লীগের আসন্ন জাতীয় কাউন্সিল নিয়ে সাধারণ সম্পাদক বলেন, জাতীয় কাউন্সিল সামনে রেখে মেয়াদোত্তীর্ণ তৃণমূলের সম্মেলন হচ্ছে। চারটি সহযোগী সংগঠনের সম্মেলন সামনে রেখে প্রয়োজনীয় পকেট ভারি করার জন্য, নিজের শক্তি বাড়ানোর জন্য বিতর্কিত ব্যক্তিদের দলে ঢোকাবেন না। এই অনুপ্রবেশকারীরা দলের জন্য ক্ষতিকর। আগামি দিনে নতুন মডেলে দলের নেতৃত্বকে পুনর্বিন্যাস করব। ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রসঙ্গে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, আপনারা প্রস্তুতি নিতে থাকেন। তারিখ আমি পরে নেত্রীর সঙ্গে আলাপ করে আপনাদের জানিয়ে দেব। এখানে একটা বিষয় আছে, সেটা হচ্ছে যে নির্বাচন কমিশন আগামি বছরের প্রথম দিকে ঢাকা সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠানের চিন্তা-ভাবনা করছে। কাজেই সিটি করপোরেশন নির্বাচন সেটা বিচার করলেও আর বেশি দিন বাকি নেই। সিটি করপোরেশনের নির্বাচনেরও প্রস্তুতি নিতে হবে।