ঢাকা   মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  পেটে গজ-ব্যান্ডেজ রেখে সেলাই, রংপুরে প্রসূতির মৃত্যু (দেশজুড়ে)        নওগাঁয় ট্রাক চাপায় মা-মেয়ে নিহত (ঘটনা-দুর্ঘটনা)        রাজশাহীর সেই আমবাগানকে পাখির জন্য অভয়ারণ্য করার উদ্যোগ (কৃষি ও প্রকৃতি)        সড়ক পরিবহন আইনের প্রতিবাদে বিভিন্ন জেলায় বাস বন্ধ (দেশজুড়ে)        শেরপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত (জেলার খবর)        যত চাপই থাকুক সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়ন হবে: সেতুমন্ত্রী (জাতীয়)        বিস্ফোরণ গ্যাস লাইন থেকে হয়নি: কেজিডিসিএল (ঘটনা-দুর্ঘটনা)        নতুন পরিবহন আইন কার্যকরে প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়াচ্ছে বৈধ ও দক্ষ চালকের সঙ্কট (জাতীয়)        বঙ্গবন্ধু বিপিএলে কে কোন দলে (ক্রিকেট)        এবারের বিপিএলে যা কিছু নতুন (ক্রিকেট)      

ইসলামপুর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের পিয়ন আব্দুল আজিজের দলিলে টিপসই বাণিজ্য

Logo Missing
প্রকাশিত: 02:04:04 pm, 2019-10-31 |  দেখা হয়েছে: 11 বার।

ওসমান হারুনী:

জামালপুরের ইসলামপুর সাব রেজিস্ট্রি অফিস দীর্ঘদিন ধরে অনিয়ম দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে। সাব রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল হয় না ঘুষ ছাড়া। দীর্ঘদিন ধরে অফিসের পিয়ন আ: আজিজের দলিলের টিপসই বাণিজ্যেসহ নানান অনিয়মের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে জমি ক্রেতা-বিক্রেতা ও দলিল লেখকরা।

জানা গেছে, ২০১৭সালে ইসলামপুর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের পিয়ন আব্দুল আজিজ ইসলামপুরে যোগদান করার পর তিনি অদৃশ্য ক্ষমতা বলে অফিস সামলাচ্ছেন। অফিস পিয়ন হয়ে তিনি কর্তা বাবুর ভূমিকা নিয়ে চেয়ারে বসে নিয়মিত দলিল প্রতি টিপসই বাবদ ক্রেতা বিক্রেতার কাছে ৫০টাকা হতে বর্তমানে ১০০টাকা আদায়সহ নানান কৌশলে দলিল প্রতি তিনি ঘুষ নিচ্ছেন। পিয়নের এহেন কর্মকান্ড অনুসন্ধ্যানে জানা যায়, অফিস পিয়নের কর্মকান্ডে দলিল লেখকরা কেউ প্রতিবাদ করলে কোন অজুহাতে তার দলিল রেজিস্ট্রি হয় না। পিয়নের মাধ্যমে তুলা হচ্ছে প্রতিনিয়ত সাব রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল প্রতি ১০০০টাকা করে সেরেস্তা নামে ঘুষ। হেবা বা দানপত্র দলিল করতে গেলে জমি মুল খারিজ বা পর্চা না থাকলে প্রতি দলিলের অতিরিক্ত ১৫০০টাকা ঘুষ দিতে হয় অফিসে। পাওয়ার দলিল পার করতে সরকারি ফি ছাড়াও ১০হাজার টাকা নেওয়া হয়। পূর্বে ইসলামপুর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে কমিশন দলির করতে লাগতো দুই থেকে তিন হাজার টাকা পিয়ন আব্দুল আজিজ ইসলামপুরে আসার পর থেকে কমিশন দলিল করতে ২০হাজার টাকা করে নেওয়া হয়। অফিসের দলিল তালাশী খরচ ৫০টাকা হলেও তিনি ৫০০ টাকা নেন। এছাড়াও ক্রেতার দলিল আগ-পিছ করে তিনি মোটা অংকের টাকা ঘুষ নেন।

সাব রেজিস্ট্র অফিসের দলিল লেখকরা জানান,এখানে প্রতিদিন কর্মদিবসে ৮০/৯০টি পর্যন্ত দলিল রেজিস্ট্রি হয়। এই হিসাবে অভিযুক্ত অফিস পিয়ন আব্দুল আজিজ প্রতিমাসে টিপ সইয়ের টাকাসহ মোটা অংকের টাকা নিয়ে সে কোটি কোটি টাকা মালিক হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ২৮অক্টোবর রবিবার অফিস চলাকালীন সময় স্থান পরিবর্তন কোর্ট বিল্ডিং সাব রেজিস্ট্রি অফিসে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে দলিল প্রতি ১০০টাকা করে নিয়ে পিয়ন আব্দুল আজিজ টিপসই নিচ্ছেন। এসময় সাংবাদিকের উপস্থিতি টের পেয়ে পাশে মসজিদের নামে দান বাক্সে টাকা ফেলতে বলে জমি ক্রেতাদের। অভিযোগ রয়েছে,ক্রেতা-বিক্রেতার কাছে মসজিদের নামে দান বাক্সে টাকা তুলে তিনি দীর্ঘদিন ধরে আত্বসাত করে আসছেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত অফিস পিয়ন আব্দুল আজিজ সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি কোন সদুত্তোর দিতে পারেন নি। তবে মসজিদেও টাকা তুলে মসজিদের সাব রেজিস্ট্রি অফিসের মসজিদের কাজে ব্যায় করা হয় বলে জানান।