ঢাকা   ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০ | ৭ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  সরিষাবাড়ীতে গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত (জামালপুরের খবর)        বকশিগঞ্জ শিক্ষার্থীবিহীন দুস্থ্য প্রতিবন্ধী কারিগরি শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র : ৯ প্রতিবন্ধীর শিক্ষাবৃত্তি (জামালপুরের খবর)        শেরপুরে আখেরী মুনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের উরশ (জেলার খবর)        শ্রীবরদীতে বৈদেশিক কর্মসংস্থান সচেতনতা শীর্ষক প্রচার, প্রেস ব্রিফিং ও সেমিনার অনুষ্ঠিত (জেলার খবর)        একনেকে ১৩ হাজার ৬৩৯ কোটি ব্যয়ে ৯ প্রকল্প অনুমোদন (জাতীয়)        পানির দাম ৮০ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব অযৌক্তিক: টিআইবি (জাতীয়)        চীনকে মাস্ক-গ্লাভসসহ চিকিৎসা সামগ্রী দিল বাংলাদেশ (জাতীয়)        কচুরিপানা খেতে বলিনি, গবেষণা করতে বলেছি: পরিকল্পনামন্ত্রী (জাতীয়)        দেশে করোনা ভাইরাসের রোগী মেলেনি, আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ (জাতীয়)        শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ দ্বিতীয়: সেনাপ্রধান (জাতীয়)      

অভিযোগ প্রমাণে শাজাহান খানকে ফের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ইলিয়াস কাঞ্চনের

Logo Missing
প্রকাশিত: 01:56:22 am, 2019-12-12 |  দেখা হয়েছে: 2 বার।

আ.জা. ডেক্স:

নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন বলেছেন, শাজাহান খান আমার নামে মিথ্যাচার করেছেন নিজের দুর্বলতা ঢাকার জন্য। আমার নামে মানহানিকর কথা বলেছেন জাতিকে বিভ্রান্ত করার জন্য এবং সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮কে বাধাগ্রস্ত করার জন্য। আমার নামে মিথ্যাচার প্রমাণের জন্য তাকে আবারও ২৪ ঘণ্টার সময় বেঁধে দিলাম। গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের আবদুস সালাম হলে নিরাপদ সড়ক চাই সংগঠন আয়োজিত এক প্রতিবাদমূলক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

লিখিত বক্তব্যে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের জন্য আমার সংগঠনের পক্ষ থেকে ওইদিনই প্রতিবাদ জানানো হয় এবং শাজাহান খানকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেওয়া হয়। এই সময় দেওয়া হয় যাতে তার দেওয়া তথ্যের প্রমাণ তিনি উপস্থাপন করতে পারেন অথবা ক্ষমা প্রার্থনা করার জন্য। কিন্তু ২৪ ঘণ্টা পার হলেও তিনি তার বক্তব্যের পক্ষে জাতির সামনে কোনও প্রমাণ হাজির করতে পারেননি এবং ক্ষমাও চাননি। তাকে আবারও ২৪ ঘণ্টার সময় বেঁধে দিচ্ছি। যদি এই সময়ের মধ্যে তিনি জাতির সামনে তথ্য তুলে ধরতে না পারেন তাহলে আমি আইনের পথে হাঁটবো।

শাজাহান খানকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, আমি কারও পক্ষে-বিপক্ষে নই। আমি আপামর মানুষের স্বার্থে কথা বলি। কিন্তু শাজাহান খান বলে থাকেন আমি নাকি সাধারণ মানুষের কাছে পরিবহন শ্রমিকদের বিরুদ্ধে কথা বলে নেতিবাচক আবহ তৈরি করি। আমি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিচ্ছি, কবে কখন কোথায় সরাসরি পরিবহন শ্রমিকদের বিরুদ্ধে কথা বলেছি সেটা প্রমাণ করতে হবে। আমি সব সময় কথা বলে আসছি অন্যায়ের বিরুদ্ধে, অনিয়মের বিরুদ্ধে, বিশৃঙ্খল পরিবেশের বিরুদ্ধে। আর সেটা যদি কারও বিপক্ষে যায় তাহলে কি খুব বেশি অন্যায় হবে? শাজাহান খানের কাছে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, পরিবহন সেক্টরে বছরে বিভিন্ন খাতের নামে যে টাকা উত্তোলন (চাঁদা) করা হয় সেই টাকার কত অংশ শ্রমিকদের কল্যাণে ব্যয় করেছেন, কয়টা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন দক্ষ শ্রমিক গড়ার জন্য, কয়টা হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছেন শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সেবা দেওয়ার জন্য, তাদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য কত অংশ ব্যয় করেছেন সেই টাকার?

নিরাপদ সড়ক চাই কতজন দক্ষ চালক তৈরি করেছে- শাজাহান খানের এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা নতুন চালক তৈরি করার জন্য বিনা ফি তে এসএসসি পাস, দরিদ্র, বেকার যুবকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে লাইসেন্স নেওয়ার উপযোগী করে তুলছি। আপনার সংগঠন পরিচালনার জন্য যে অর্থ ব্যয় হয় সেই টাকা কোথা থেকে আসে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, সংগঠন শুরুর প্রথম ১২ বছর আমার নিজের অর্থে সংগঠন পরিচালনা করেছি। পরে একটা সাংগঠনিক কাঠামো করে এই সংগঠন পরিচালনা করছি। আমাদের রেজিস্টার্ড সদস্য আছে প্রায় ১৫ হাজারের মতো যারা বাৎসরিক এবং মাসিক ফি দেয়। এ ছাড়া আমাদের ১২০টি শাখা সংগঠন আছে যারা প্রতি দুই বছর অন্তর রিনিউ ফি প্রদান করে। এ ছাড়া যখন কোনও অনুষ্ঠান করি তখন বাংলাদেশের যারা ব্যবসায়ী আছেন তারা আমাদের স্পন্সর করেন। সড়ক নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করতে নিসচা ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে এনজিও হিসেবে নিবন্ধিত হয় বলে জানান ইলিয়াস কাঞ্চন। এনজিও হিসেবে নিবন্ধনের কারণ ব্যাখ্যায় তিনি বলেন, তা না হলে আন্তর্জাতিক সংগঠনের সঙ্গে কাজ করতে অসুবিধা হত। এ কারণে আমরা এনজিও হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছি। আমাদের আয়ের উৎস নিজস্ব অর্থায়ন। সদস্যদের কাছ থেকে নেওয়া চাঁদা আমাদের আয়ের মূল উৎস। আমার সংগঠনে বিদেশ থেকে কোনো অনুদান আসে না।

গত ৮ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জে এক অনুষ্ঠানে পরিবহন শ্রমিকদের সবচেয়ে বড় সংগঠন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি শাজাহান খান নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা ইলিয়াস কাঞ্চনকে জ্ঞানপাপী আখ্যায়িত করেন। ইলিয়াস কাঞ্চনকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনি যে বিদেশিদের কাছ থেকে নিরাপদ সড়ক চাই এনজিওর নামে কোটি কোটি টাকা নিয়ে আসছেন। আপনি কয়টি প্রতিষ্ঠান করেছেন, কয়েকটি স্কুল করেছেন, কয়জন মানুষকে ট্রেনিং দিয়েছেন- আমি তার তথ্য বের করতেছি। ইলিয়াস কাঞ্চন কোথা থেকে কত টাকা পান, কী উদ্দেশ্যে পান, সেখান থেকে কত টাকা নিজে নেন, পুত্রের নামে নেন, পুত্রবধূর নামে লক্ষ লক্ষ টাকা নেন সেই হিসেব আমি জনসম্মুখে তুলে ধরব। পরে ইলিয়াস কাঞ্চন ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শাজাহান খানকে এই অভিযোগের প্রমাণ দিতে বলেন। কিন্তু বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে শাজাহান খানের জবাব না পাওয়ায় আবারও ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অভিযোগের স্বপক্ষে তথ্যপ্রমাণ হাজির করার আহবান জানালেন ইলিয়াস কাঞ্চন। পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের কখনই প্রতিপক্ষ মনে করেন না জানিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, কিন্তু শাজাহান খান আমার বিরুদ্ধে শ্রমিকদের ক্ষেপিয়ে তুলছেন। এ কারণে আমি ও আমার পরিবারের সদস্য এবং সংগঠনের সদস্যদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত। নিজের ব্যর্থতা ঢাকতে শাজাহান খান এসব প্রশ্নের অবতারণা করেছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। শাজাহান খান যেদিন এসব কথা বলেন সেদিন ভারতে থাকায় তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিক্রিয়া জানাতে পারেননি বলে জানান ইলিয়াস কাঞ্চন। সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের অন্যান্য কর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন।