ঢাকা   রবিবার ০৭ জুন ২০২০ | ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  জামালপুরে ৬শ অসহায় পরিবারকে বিজিবির ত্রাণ বিতরণ (জামালপুরের খবর)        জামালপুরবাসীর স্বাস্থ্যসেবায় নিজেকে বিলিয়ে দিতে চাই: আশরাফুল ইসলাম বুলবুল (জামালপুরের খবর)        করোনা দুর্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষের সমস্যা নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন-মির্জা আজম এমপি (জামালপুরের খবর)        গন্তব্যে পৌছবে কি ছানুর নৌকা (জামালপুরের খবর)        বেতন ও বোনাসের টাকায় ঈদ সামগ্রী নিয়ে দেড়শ মধ্যবিত্ত পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন কিরন আলী (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে ভাগ্য বিড়ম্বিত শিশুদের মাঝে ঈদ উপহার ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ। (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে তরুনদের সহায়তায় দুইশত পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ (জামালপুরের খবর)        ময়মনসিংহে ৩শ দরিদ্র পরিবারের মাঝে সেনা প্রধানের ঈদ উপহার পৌঁছে দিলেন আর্টডক সদস্যরা (ময়মনসিংহ)        করোনা যোদ্ধা নার্সিং সুপারভাইজার শেফালী দাস শ্বাসকষ্টে মারা গেছেন (ময়মনসিংহ)        বিদ্যানদীর মত সকল সামাজিক সংগঠন যদি এই দুর্যোগের সময়ে এগিয়ে আসে তবে সরকারের উপর চাপ অনেকংশে কমে যাবে -মির্জা আজম এমপি (জামালপুরের খবর)      

পিলখানা হত্যাকাণ্ডের বাংলা রায় হস্তান্তর

Logo Missing
প্রকাশিত: 11:25:53 pm, 2020-02-11 |  দেখা হয়েছে: 1 বার।

আ.জা.ডেক্সঃ

পিলখানায় বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) সদর দফতরে হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় হাইকোর্টের দেওয়া বাংলা রায় বাংলা একাডেমিতে হস্তান্তর করেছে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন। গতকাল মঙ্গলবার বাংলা একাডেমিতে এ রায় হস্তান্তর করেন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের স্পেশাল কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুর রহমান ও হাইকোর্ট বিভাগের ডেপুটি রেজিস্ট্রার মো. আবদুর রহমান। এর আগে গত সোমবার সকালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে এ রায় হস্তান্তর করা হয়। ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি পিলখানার বিডিআর সদর দফতরে ৫৭ জন সেনা সদস্যসহ ৭৪ জনকে হত্যার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর ১৫২ জন বিডিআর সদস্যকে মৃত্যুদ- এবং বেসামরিক লোকসহ বিডিআরের আরও সদস্যদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়ে রায় দেন বিচারিক আদালত। ওই রায়ের ডেথ রেফারেন্স এবং আপিলের ওপর হাইকোর্ট ২০১৭ সালের ২৬ ও ২৭ নভেম্বর রায় ঘোষণা করেন। চলতি বছরের ৮ জানুয়ারি ওই রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ করেন হাইকোর্ট। ২৯ হাজার ৫৯ পৃষ্ঠার এ রায় দিয়েছেন বিচারপতি মো. শওকত হোসেন, বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারের বিশেষ বেঞ্চ। এরমধ্যে বিচারপতি মো. শওকত হোসেন ১১ হাজার ৪০৭ পৃষ্ঠা, বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকী ১১ হাজার ৪০৮ থেকে ২৭ হাজার ৯৫৯ পৃষ্ঠা এবং বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ২৭ হাজার ৯৬০ পৃষ্ঠা থেকে ২৯ হাজার ৫৯ পৃষ্ঠা পর্যন্ত লিখেছেন। মোহাম্মদ সাইফুর রহমান বলেন, বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকীর মাতৃভাষা বাংলায় লেখা ১৬ হাজার ৫৫২ পৃষ্ঠার রায়ের অনুলিপি ওই দুই প্রতিষ্ঠানে হস্তান্তর করা হয়েছে। তিনি বলেন, বাংলা একাডেমিতে সংরক্ষণের উদ্দেশ্যে সংগ্রহ করার জন্য সুপ্রিম কোর্টকে পত্র মারফত অনুরোধ করার পরিপ্রেক্ষিতে এ রায় হস্তান্তর করা হয়েছে।