ঢাকা   রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ | ২৮ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  বন্যা ও করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করেই জেলার চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কাজগুলো বাস্তবায়ন করতে হবে- আবুল কালাম আজাদ (জামালপুরের খবর)        সরিষাবাড়ীতে দুই বৎসর পর হত্যা রহস্য উদঘাটন করল সিআইডি (জামালপুরের খবর)        জামালপুরের বন্যা পরিস্থিতি: নিম্নাঞ্চলে কমছে ধীর গতিতে (জামালপুরের খবর)        অবহেলিত ঘোড়াধাপের রাস্তা-ঘাট সংস্কার করলেন আনছার আলী (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে এক শিশু নারায়গঞ্জ ফেরত এক ব্যক্তিসহ ৭ জনের করোনা শনাক্ত , আক্রান্ত ৬৪৯ (জামালপুরের খবর)        শেরপুরে ঐতিহাসিক কাটাখালি যুদ্ধ দিবসে শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ (জেলার খবর)        শিগগিরই গ্রেফতার হবে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ: র‌্যাব (জাতীয়)        ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনায় সংসদে বিল পাস (জাতীয়)        করোনা নিয়ে প্রতারণা ও অনিয়মের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে: কাদের (জাতীয়)        আরও ৩৪৮৯ জন করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যু ৪৬ জনের (জাতীয়)      

দুই মাসে সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন ১০২৭জন: জিসিবি

Logo Missing
প্রকাশিত: 01:43:24 am, 2020-03-07 |  দেখা হয়েছে: 5 বার।

আ.জা. ডেক্স:

চলতি বছরের প্রথম দুই মাসে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ৭৫৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১,০২৭ জন নিহত ও ১,৩০১ জন আহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যা যথাক্রমে ১৪১ ও ১৬৬। ১ জানুয়ারি থেকে ২৯ ফেব্রæয়ারি পর্যন্ত বিভিন্ন মহাসড়ক, জাতীয় সড়ক, আন্তঃজেলা সড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে এসব প্রাণঘাতি দুর্ঘটনা ঘটে। পরিবেশ ও নাগরিক অধিকার সংরক্ষণবিষয়ক বেসরকারি সংগঠন গ্রিন ক্লাব অব বাংলাদেশের (জিসিবি) মাসিক জরিপ ও পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। ২৪টি জাতীয় দৈনিক, ১২টি আঞ্চলিক সংবাদপত্র এবং ১০টি অনলাইন নিউজপোর্টাল ও সংবাদ সংস্থার তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয় বলে গতকাল শুক্রবার সংগঠনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

জিসিবির দফতর সম্পাদক শেখ সিরাজ আহমেদ স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জানুয়ারিতে ৩৫৭টি দুর্ঘটনায় ৭০ নারী ও ৭৫ শিশুসহ ৪৮৭ জন নিহত এবং ৬২২ জন আহত হন। ফেব্রুয়ারিতে ৩৯৮টি দুর্ঘটনায় নিহত ও আহত হন যথাক্রমে ৫৪০ জন ও ৬৭৯ জন। নিহতের তালিকায় ৭১ জন নারী ও ৯১টি শিশু রয়েছে।

জিসিবির সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে জানান, তাদের পর্যবেক্ষণে সড়ক দুর্ঘটনার জন্য ১০টি প্রধান কারণ চিহ্নিত করা হয়েছে। সেগুলো হলো-
১. সড়ক-মহাসড়কে মোটরবাইকসহ তিনচাকার যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি।
২. ব্যস্ত সড়কে স্থানীয়ভাবে তৈরি ইঞ্জিনচালিত ক্ষুদ্রযানে যাত্রী ও পণ্য পরিবহন।
৩. চালকদের মধ্যে প্রতিযোগিতা ও বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানোর প্রবণতা।
৪. ত্রুটিপূর্ণ গাড়ি চলাচল ও লাইসেন্সবিহীন চালক নিয়োগ।
৫. অদক্ষ চালকের কাছে দৈনিক চুক্তিভিত্তিক গাড়ি ভাড়া।
৬. বিধিলঙ্ঘন করে ওভারলোডিং ও ওভারটেকিং।
৭. বিরতি ছাড়াই দীর্ঘ সময় ধরে গাড়ি চালানো।
৮. পথচারীদের মধ্যে সচেতনতার অভাব।
৯. জনবহুল এলাকাসহ দূরপাল্লার সড়কে ট্রাফিক আইন ভাঙা।
১০. বিভিন্ন স্থানে সড়কের বেহালদশা।