ঢাকা   ০৮ এপ্রিল ২০২০ | ২৫ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  জামালপুরে সাংবাদিক ও পুলিশকে পিপিই দিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক আহম্মেদ চৌধুরী (জামালপুরের খবর)        সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে র‌্যাবের কঠোর হুঁশিয়ারি (জামালপুরের খবর)        জামালপুর পৌরসভায় ব্যক্তিগত অর্থে ৫ হাজার ২শ ৯০টি পরিবারকে ত্রাণ দিলেন ছানোয়ার হোসেন ছানু (জামালপুরের খবর)        শাহবাজপুরে স্বল্পমূল্যে খাদ্যশস্য বিতরণ (জামালপুরের খবর)        ঝিনাইগাতীতে কর্মহীন মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য সংকট (জেলার খবর)        শেরপুরে ত্রাণ চাইতে গিয়ে পৌর কাউন্সিলের বিরুদ্ধে নির্যাতনের শিকারের অভিযোগ! (জেলার খবর)        শেরপুরে কর্মহীন শ্রমিকদের মাঝে বাজুসের খাদ্য সহায়তা প্রদান (জেলার খবর)        চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের জন্য বিশেষ স্বাস্থ্যবীমার ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর (জাতীয়)        সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ছে ঈদ পর্যন্ত (জাতীয়)        বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের মৃত্যুদন্ডাদেশ কার্যকর হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)      

বাজার নিয়ন্ত্রণে জামালপুরে ৫ ব্যবসায়ীকে ভ্রাম্যমান আদালত কর্তৃক জরিমানা

Logo Missing
প্রকাশিত: 01:35:17 am, 2020-03-21 |  দেখা হয়েছে: 156 বার।

হাফিজুর রহমান:

করোনা পরিস্থিতিতে জামালপুরের বাজার নিয়ন্ত্রণে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছে জেলা প্রশাসন। ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৫ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ৩৬ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

গত শুক্রবার ২০ মাচ সকাল থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের এ অভিযান শুরু হয়েছে। একইসঙ্গে অভিযানের মাধ্যমে ব্যবসায়ীদের সতর্ক ও সচেতন করার কাজও চলছে।

গত কদিন ধরেই করোনা ভাইরাস নিয়ে জামালপুরের মানুষের মধ্যে উদ্বেগ উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। লকডাউন ঘোষণা হলে খাদ্যশস্যসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের সংকট দেখা দিতে পারে, এ ধারণা থেকে জামালপুরের বাসিন্দারা খাদ্যশস্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য প্রয়োজনের তুলনায় বেশি কিনে রাখছেন।

সকাল বাজার এলাকার এক ব্যবসায়ী জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে বাজারে ক্রেতাদের উপস্থিতি বেশি। বিক্রিও বেশি হচ্ছে। অনেকটা ঈদের আগের যেমন বিক্রি হয়, তেমনই হচ্ছে।

ক্রেতারা জানান, করোনা ভাইরাসের সংক্রমন এড়াতে যদি সাধারণ মানুষকে বাড়িতে অবস্থান করতে হয়, তাহলে খাদ্যশস্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের প্রয়োজনটা বেশি হবে। তাই প্রয়োজনীয় জিনিসগুলোই একটু বেশি কিনে রাখছি। তবে ক্রেতাদের অভিযোগ, বাজারে পর্যাপ্ত সবপণ্যের সরবরাহ থাকলেও সংকটের দোহাই দিয়ে মূল্য বাড়িয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য কিংবা চাহিদা বেশি থাকা পণ্যগুলো বিক্রি করছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা।

অন্যদিক খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাইকারি বাজারে পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় তারা বাড়তি দামে বিক্রি করছেন। বাজারে পণ্যের সংকট না দেখা দিলেও পাইকাররা পণ্যের সংকটের কথা বলেই দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। তবে পাইকাররা বলছেন, হঠাৎ করেই ভোক্তা পর্যায়ে প্রয়োজনের বেশি পণ্যের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় বাজারে কিছু পণ্যের সাময়িক সংকট সৃষ্টি হয়, যার সুযোগ নিচ্ছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা।

ক্রেতাদের তথ্যানুযায়ী, বস্তাপ্রতি চালের দাম দু’শ থেকে তিনশ টাকা বাড়তিতে বিক্রি হচ্ছে পাইকার বাজারে। শুক্রবার পাইকারী বাজারে পেঁয়াজের সংকটের খবর শুনেই খুচরা বাজারে ৪০ টাকা দামের পেঁয়াজ কেজিপ্রতি ৬০ থেকে ৭০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি জিনিসেরই দাম কেজি প্রতি দুই থেকে পাঁচ টাকা বেড়েছে।

জামালপুর জেলায় নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর বাজার দর ঠিক রাখতে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

জামালপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ফরিদা ইয়াসমিন জানিয়েছেন, জামালপুরে করোনা অতঙ্ক ছড়িয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি ও মূল্য তালিকা সঠিক না থাকায় ৫ ব্যবসায়ীকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের বিভিন্ন ধারায় ৩৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে পুঁজি করে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রচেষ্টাকে কঠোর হস্তে দমন করা হবে। বাজার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে রাখতে অভিযান চলবে বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!