ঢাকা   ০৮ এপ্রিল ২০২০ | ২৫ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  জামালপুরে সাংবাদিক ও পুলিশকে পিপিই দিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক আহম্মেদ চৌধুরী (জামালপুরের খবর)        সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে র‌্যাবের কঠোর হুঁশিয়ারি (জামালপুরের খবর)        জামালপুর পৌরসভায় ব্যক্তিগত অর্থে ৫ হাজার ২শ ৯০টি পরিবারকে ত্রাণ দিলেন ছানোয়ার হোসেন ছানু (জামালপুরের খবর)        শাহবাজপুরে স্বল্পমূল্যে খাদ্যশস্য বিতরণ (জামালপুরের খবর)        ঝিনাইগাতীতে কর্মহীন মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য সংকট (জেলার খবর)        শেরপুরে ত্রাণ চাইতে গিয়ে পৌর কাউন্সিলের বিরুদ্ধে নির্যাতনের শিকারের অভিযোগ! (জেলার খবর)        শেরপুরে কর্মহীন শ্রমিকদের মাঝে বাজুসের খাদ্য সহায়তা প্রদান (জেলার খবর)        চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের জন্য বিশেষ স্বাস্থ্যবীমার ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর (জাতীয়)        সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ছে ঈদ পর্যন্ত (জাতীয়)        বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের মৃত্যুদন্ডাদেশ কার্যকর হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)      

কুশলনগরে ত্রাস ছড়াচ্ছে জহুরুলের পরিবার: অভিযোগ এলাকাবাসীর

Logo Missing
প্রকাশিত: 01:16:04 am, 2020-03-22 |  দেখা হয়েছে: 7 বার।

মোহাম্মদ আলী:

মনি নামে যুবককে খুন, বাচ্চাগেল্লাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করে তার মাথার খুলিবিহীন উড়িয়ে দেওয়া, সুমিকে নির্যাতনের পর গ্রামছাড়া করা, গাছ কেটে নেওয়ার মামলা করায় শাহ আলমের উপর স্বশস্ত্র হামলা করে প্রাণ নাশের চেষ্টা, আব্বাছের জমি দখল ইত্যাদি। শুধু মানুষ নয়, তাদের ত্রাস থেকে রেহাই পায় না বোবা প্রাণি ও গাছপালাও। এরা মানে না গ্রামের ময়মুরুব্বী, মানে না শালিস দরাবার, মানে না দেশের প্রচলিত আইন ও বিচার ব্যবস্থাকেও।
অতিসম্প্রতি, বকশিগঞ্জ উপজেলার কুশলনগর গ্রামের মৃত জবেদ আলীর পুত্র জহুরুল ও তার ছেলে রুবেল এবং ভাই রাজু, সাত্তার, রহিম, বকুলের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী।

সোমবার, এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিন গিয়ে, গ্রামের গন্যমান্য ব্যক্তি, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও মুক্তিযুদ্ধাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, কুশলনগর গ্রামের মৃত জবেদ আলীর ছেলে পুলেরা দীর্ঘদিন যাবত গ্রামে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছে। এরা কয়েক বছর আগে একই গ্রামের টনমন্ডলের ছেলে মনি (১৬) কে প্রকাশ্যে খুন করেছে। মৃত অহেজ আলীর ছেলে বাচ্চাগেল্লাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করলে আল্লাহর কৃপায় কোনো রকমে প্রাণে বেঁচে যায় সে। কিন্তু সেই সন্ত্রাসীদের রামদা এর আঘাতে তার মাথারখুলি উড়ে যায়। আজও সে খুলিবিহীন মাথা নিয়ে সন্ত্রাসের আলামত বয়ে বেড়াচ্ছে। গ্রামের দরিদ্র দিন মজুর মজিদ মিয়ার মেয়ে সুমিকে ধরে নিয়ে নির্যাতন করে জহুরুলের ছেলে রুবেল। প্রতিকারে সুমি আইনের আশ্রয় নিলেও পরে তাদের ভয়ে গ্রামছাড়া হতে হয়েছে তাদেরকে।

কয়েকদিন আগেও ক্ষেতের ফসল ও গাছকাটা অভিযোগে মামলা করায় শাহ আলম নামের এক যুবককে কুপিয়েছে তারা। এছাড়া আব্বাছ আলী নামীয় ওয়ারিশদের ৯৯ শতাং জমি গায়ের জোড়ে জবর দখল করে রেখেছে। শুধু গ্রামের মানুষ নয়, বোবা প্রাণি তাদের হিংস্র থাবা থেকে রেহ্ইা পায় না। ক্ষেতের ফসল খাওয়ায় ইয়ার হোসেন নামে এক দরিদ্র কৃষকের গরুকে তারা কুপিয়ে নির্মম ভাবে হত্যা করেছে। এদের সন্ত্রাসীমূলক কর্মকান্ডে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে গ্রামের মানুষ। এরা মানে না গ্রামের গণ্যমান্যদের, মানে না শালিস দরবার, মানে না দেশের প্রচলিত আইন কানুন। কেউ যদি তাদের নামে মামলা মোকদ্দমা করে তাহলে জেলহাজত থেকে বেরিয়ে তার উপর আরও বেশি করে তান্ডব চালায়। এরা দেশে প্রচলিত আইন ও বিচার ব্যবস্থার প্রতি বৃদ্ধাঙ্গল প্রদর্শন করে।

জহুরুলের পরিবার ও তার ভাই ভাতিজার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের শিকার এ গ্রামে আব্বাছ আলী বলেন, আমাদের ৯৯শতাংশ পৈত্রিক সম্পত্তি তারা জোড় পূর্বক দখল করে নিয়েছে। আমি অসহায় ও দুর্বল প্রকৃতির মানুষ হওয়ায় প্রাণের ভয়ে তাদের পেষিশক্তির মোকাবেলা করতে পারছি না। আমার ন্যায্য অধিকার প্রাপ্তীর লক্ষ্যে কয়েকবার গ্রামের গণ্যমান্য ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের শ্মরণাপন্ন হওয়ায় তারাও একাধিকবার বিষয়টি নিষ্পত্তি করার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু জহুরুলরা প্রতিবারই শালিসিয়ান ও প্রচলিত আইন কানুনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে শালিস দরবারকে অবজ্ঞা করে আসছে।

এ ব্যাপারে জহুরুলের মতামত সংগ্রহ করতে গেলে মামলাজনিত কারণে পলাতাক থাকায় তাদেরকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। মোবাইলে যোগাযোগ করতে চাইলে তিনি কথা বলতে রাজি হননি।

এমতবস্থায় গ্রামের মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাপন নিশ্চিত ও শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষা এবং জহুরুলদের সন্ত্রাসী কার্যকলাপ থেকে সাধারণ মানুষকে মুক্তি দিতে এলাকাবাসী আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর দৃষ্টি আকষর্ণ করেছেন।

Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!