ঢাকা   রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ | ২৮ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  বন্যা ও করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করেই জেলার চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কাজগুলো বাস্তবায়ন করতে হবে- আবুল কালাম আজাদ (জামালপুরের খবর)        সরিষাবাড়ীতে দুই বৎসর পর হত্যা রহস্য উদঘাটন করল সিআইডি (জামালপুরের খবর)        জামালপুরের বন্যা পরিস্থিতি: নিম্নাঞ্চলে কমছে ধীর গতিতে (জামালপুরের খবর)        অবহেলিত ঘোড়াধাপের রাস্তা-ঘাট সংস্কার করলেন আনছার আলী (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে এক শিশু নারায়গঞ্জ ফেরত এক ব্যক্তিসহ ৭ জনের করোনা শনাক্ত , আক্রান্ত ৬৪৯ (জামালপুরের খবর)        শেরপুরে ঐতিহাসিক কাটাখালি যুদ্ধ দিবসে শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ (জেলার খবর)        শিগগিরই গ্রেফতার হবে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ: র‌্যাব (জাতীয়)        ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনায় সংসদে বিল পাস (জাতীয়)        করোনা নিয়ে প্রতারণা ও অনিয়মের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে: কাদের (জাতীয়)        আরও ৩৪৮৯ জন করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যু ৪৬ জনের (জাতীয়)      

বাংলাদেশের পতাকা থাকবে যতদিন বাঁচবো

Logo Missing
প্রকাশিত: 02:36:45 am, 2020-04-25 |  দেখা হয়েছে: 4 বার।

আ.জা. স্পোর্টস:

জর্জ কোটান। এই নামটির সঙ্গে জড়িয়ে আছে বাংলাদেশের ফুটবলের সোনালি স্মৃতি। সাফ ফুটবলে বাংলাদেশ একবারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। ২০০৩ সালে সেই ট্রফি এসেছে হাঙ্গেরিয়ান বংশোদ্ভূত এই অস্টিয়ান কোচের হাত ধরে। জাতীয় দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে গেলেও বাংলাদেশকে ভুলতে পারেননি কোটান। এখনও তার বাসায় আছে লাল-সবুজ পতাকা।

অনেক আগে বাংলাদেশ ছেড়েছেন, এখনও কেন বাংলাদেশের পাতাকা রেখেছেন? কোটান জানালেন, এই দেশটিকে বড্ড বেশি ভালোবাসেন। ত্ইা জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত লাল-সবুজ পতাকা রাখবেন নিজের কাছে, বাংলাদেশকে আগে থেকেই আমি ভালোবাসি। সেই যে দেশে ফেরার সময় লাল-সবুজ পতাকা নিয়ে এসেছিলাম, তা এখনও আছে। আমি যতদিন বাঁচবো ততদিন এই পতাকা আমার বাসায় থাকবে। কারণ বাংলাদেশ আমার নিজের বাড়ির মতোই।

৭৩ বছর বয়সী কোটান শুধু জাতীয় দল নয়, মুক্তিযোদ্ধা ও আবাহনীর কোচ হিসেবেও কাজ করেছিলেন। আবাহনীর হয়ে লিগ শিরোপাও জিতেছিলেন তিনি। বর্তমানে হাঙ্গেরির এক দলের কোচ হিসেবে কাজ করছেন তিনি। বুদাপেস্টে বসবাস করলেও বাংলাদেশের ফুটবলের খবর যে তিনি নিয়মিতই রাখেন, সেটি বোঝা গেল তার এই কথায়, বাংলাদেশ দীর্ঘদিন ধরে সাফের ট্রফি পাচ্ছে না। এটা শুনতে খারাপ লাগে। তবে আমি মনে করি ভবিষ্যতে হয়তো তারা ট্রফির দেখা পাবে।
সুযোগ পেলে কোটান আবারও বাংলাদেশে কোচিং করাতে চান, এই বছরের শেষ সময় পর্যন্ত হাঙ্গেরির ফেডারেশনের সঙ্গে যুক্ত আছি। তারপর কী হবে জানি না। তবে সুযোগ পেলে বাংলাদেশে ফিরতে চাইবো।

করোনাভাইরাসের কারণে পুরো বিশ্ব এখন বিপরযস্ত। কোটানের আহবান, করোনার হাত থেকে বাঁচার জন্য সবাইকে সাবধানে থাকতে হবে। নিয়মকানুন মেনে চলতে পারলে এই ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। আশা করছি বাংলাদেশের সবাই এটা মেনে চলবে।