ঢাকা   রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ | ২৮ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  বন্যা ও করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলা করেই জেলার চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কাজগুলো বাস্তবায়ন করতে হবে- আবুল কালাম আজাদ (জামালপুরের খবর)        সরিষাবাড়ীতে দুই বৎসর পর হত্যা রহস্য উদঘাটন করল সিআইডি (জামালপুরের খবর)        জামালপুরের বন্যা পরিস্থিতি: নিম্নাঞ্চলে কমছে ধীর গতিতে (জামালপুরের খবর)        অবহেলিত ঘোড়াধাপের রাস্তা-ঘাট সংস্কার করলেন আনছার আলী (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে এক শিশু নারায়গঞ্জ ফেরত এক ব্যক্তিসহ ৭ জনের করোনা শনাক্ত , আক্রান্ত ৬৪৯ (জামালপুরের খবর)        শেরপুরে ঐতিহাসিক কাটাখালি যুদ্ধ দিবসে শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ (জেলার খবর)        শিগগিরই গ্রেফতার হবে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ: র‌্যাব (জাতীয়)        ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনায় সংসদে বিল পাস (জাতীয়)        করোনা নিয়ে প্রতারণা ও অনিয়মের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে: কাদের (জাতীয়)        আরও ৩৪৮৯ জন করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যু ৪৬ জনের (জাতীয়)      

আমি ইরফানকে ঈর্ষা করতাম: নাসিরুদ্দিন শাহ

Logo Missing
প্রকাশিত: 01:06:37 am, 2020-05-04 |  দেখা হয়েছে: 5 বার।

আ.জা. বিনোদন:

ইরফান খানের মধ্যে নিজেকে নিয়ে কখনও কোনও সন্দেহ তৈরি হয়নি, না অভিনেতা হিসেবে, না ব্যক্তি হিসেবে। বললেন  ভারতের আর এক কালজয়ী অভিনেতা নাসিরুদ্দিন শাহ। এক সংবাদপত্রে ইরফানকে নিয়ে একটি প্রবন্ধ লিখেছেন নাসির, তাতে লিখেছেন, ইরফানের প্রতিটি কাজে বুদ্ধির দীপ্তি ঝলসে উঠত। বহু স্বল্প ক্ষমতাসম্পন্ন অভিনেতার ঈর্ষার কারণ ছিলেন তিনি। নাসিরুদ্দিন ও ইরফান এক সঙ্গে দুটি ছবি করেছেন, বিশাল ভরদ্বাজের মকবুল ও সাত খুন মাফ। অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে নাসির লিখেছেন,  ইরফান মানুষকে বিশ্বাস করতেন, বুদ্ধির ঝলক ও ব্যক্তিত্বের চৌম্বকীয়তা তার মধ্যে এক ধরনের নম্রতা এনেছিল। অদ্ভুত হেয়ালি ছিলেন ইরফান, বহু স্বল্প পরিশ্রমী অভিনেতার ঈর্ষার কারণ ছিলেন যারা সাফল্যের জন্য ঈশ্বরের বদান্যতা, জন্মসূত্রে পাওয়া প্রতিভা বা স্রেফ কপালের ওপর নির্ভর করেন। ইরফান যা হয়ে উঠেছিলেন তার পিছনে এই একটি কারণও ছিল বলে তার মনে হয় না।

ক্যামেরার সামনে ওই অনায়াস স্বাচ্ছন্দ্য সহজে আসে না। শুধু বছরের পর বছরের চিন্তা ও অনুশীলন তার পিছনে ছিল না, ছিল পারফরম্যান্সের মাধ্যমে জনসংযোগের ব্যাপারে অস্বাভাবিক বোধগম্যতা, ঠিক কতটা, কীভাবে করতে হবে। নাসির বলেছেন, তার স্বীকার করতে কোনও অস্বস্তি নেই, ইরফানের অভিনয় ক্ষমতা তার নিজেরও ঈর্ষণীয় ছিল। যেভাবে ইরফান কাজ করতেন, দেখে বহুবার মনে হয়েছে, যদি ঘড়িটা পিছনে ফেরাতে পারতেন, পুরনো কিছু অভিনয় নতুন এই অভিজ্ঞতার মাধ্যমে আরও সমৃদ্ধ করে তুলতে পারতেন। তার অভিনয়ের প্রতি নাসিরের অসামান্য মুগ্ধতা ছিল, এই বয়সেই অভিনয়ের সমস্ত খুঁটিনাটি তাঁর আয়ত্তে¡, তারপরেও শেখার আগ্রহ একটুও কমেনি। অভিনয় কখনও অভিনয় হয়ে উঠতে দেননি ইরফান, তাই বোঝা অসম্ভব হয়ে যেত, ঠিক কীভাবে কী করলেন উনি।

ইরফান বহুবার বলেছেন, আমেরিকান টিভি সিরিজ ইন ট্রিটমেন্ট-এ জীবনের অন্যতম কঠিন চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। এক বিপত্নীক ব্যক্তির চরিত্রে ছিলেন তিনি, যাকে স্ত্রীবিহীন জীবনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে প্রতি মুহূর্তে হোঁচট খেতে হচ্ছে। শ্যুটিংয়ের আগের রাতে ইরফান নাসিরকে ফোন করেন, বলেন, ৪ পাতার ডায়ালগ আছে, কীভাবে মুখস্ত করব? আপনি কীভাবে করেন? নাসির বলেন, আপনার কাছে সময় কত আছে? ইরফান বলেন, এক রাত। জবাবে প্রবীণ অভিনেতা বলেছিলেন, তাহলে ঘুমের কথা ভুলে যান। গোটা রাত ধরে মুখস্ত করুন। যত বার সম্ভব পড়ে ফেলুন। আমার কাছে কোনও জাদু কাঠি তো নেই, আমি হাজার বার করে পড়ি, যাতে মনে থাকে। এই রাতটায় যতবার পারেন, পড়ে ফেলুন। তাই করেছিলেন ইরফান। পরদিন তার অভিনয় সকলকে অবাক করে দিয়েছিল।